শুক্রবার, ০৭ অগাস্ট ২০২০, ০৬:১৪ পূর্বাহ্ন

সর্বশেষ সংবাদ :
অনিয়ম বন্ধ হলে কমে যাবে ক্ষুধার্ত সাংবাদিকের সংখ্যা। লিটন মোল্লাকে খুঁজে পাচ্ছে না পুলিশ বরিশালে নতুন করে ৪৫ জনের করোনা শনাক্ত, একজনের মৃত্যু বরিশাল র‌্যাবের অভিযানে গাঁজাসহ ২ মাদক বিক্রেতা গ্রেপ্তার বরিশালে সাপের কামড়ে দুজনের মৃত্যু সাতদিনের রিমান্ডে ওসি প্রদীপসহ ৩ আসামি জামিন নাকচ, ওসি প্রদীপসহ সাত পুলিশ কারাগারে বন্যার পানিতে ১৩৪ জনের মৃত্যু, ২৪ ঘণ্টায় ১৬ ঝালকাঠিতে ভয়াবহ অগ্নিকাণ্ড, মুহূর্তেই পুড়ে ছাই ১৫ ব্যবসা প্রতিষ্ঠান বরিশালে অবৈধ আবাসিক হোটেলের হর্তাকর্তা ডিবির জালে আটক। বরিশালে বন্যায় ভেসে যাওয়া রাস্তায় বাঁধ নির্মাণের নির্দেশ পানি সম্পদ প্রতিমন্ত্রীর। উজিরপুরে এ্যাসিলান্ডের হস্তক্ষেপে বাল্য বিবাহ থেকে রক্ষা পেলো কিশোরী। উজিরপুরে শেখ কামালের ৭১তম জন্মবার্ষিকী পালিত। ঝালকাঠিতে সদ্য হয়রানির শিকার নারী মুচি সবিতার ভাগ্য উন্নয়ন শেখ কামালের ৭১তম জন্মবার্ষিকীতে রাজারহাট প্রশাসনের বৃক্ষরোপন কর্মসূচী কুষ্টিয়া প্রেসক্লাব কেপিসিকে এসি উপহার দিলেন দৌলতপুর উপজেলার ভাইস চেয়ারম্যান যশোর সতীঘাটায় সরকারি জমিতে অবৈধভাবে ঘর নির্মাণ লেবানন বিস্ফোরণ : ব্রাহ্মণবাড়িয়ার আরেক তরুণের মৃত্যু মোটরসাইকেলের পেছনে বাসের ধাক্কা, স্বামী-স্ত্রী নিহত চাঁদপুরে মাদকবিরোধী অভিযানে ২ জনের কারাদণ্ড
সুশান্তের মৃত্যু: এবার প্রকাশ্যেই মুখ খুললেন অঙ্কিতা

সুশান্তের মৃত্যু: এবার প্রকাশ্যেই মুখ খুললেন অঙ্কিতা

সুশান্তের মৃত্যু: এবার প্রকাশ্যেই মুখ খুললেন অঙ্কিতা

অনলাইন ডেস্ক
সুশান্ত সিং রাজপুতের মৃত্যুর ঘটনায় এবার প্রকাশ্যেই মুখ খুললেন তার সাবেক বান্ধবী অঙ্কিতা লোখান্ডে। একটি টিভির লাইভ অনুষ্ঠানে প্রথমবার মুখ খোলেন অঙ্কিতা। সাফ জানান, সুশান্ত কখনওই মানসিক অবসাদগ্রস্ত ছিলেন না।

অঙ্কিতাকে প্রকাশ্যেই বলতে শোনা যায়, ‘সুশান্তকে যেভাবে বারবার মানসিক অবসাদগ্রস্ত বলা হচ্ছে, সেটা সব থেকে বড় ভুল শব্দ। কোনওভাবেই এটা সত্যি হতে পারে না। কোনও ঘটনায় সুশান্তের সাময়িক মন খারাপ হতে পারে, তাকে মানসিক অবসাদ বলা যায় না। মানসিক অবসাদ শব্দটা অনেক বড় শব্দ। কোনও কারণ ছাড়াই কীভাবে কেউ কাউকে মানসিক অবসাদগ্রস্ত বলতে পারেন?’

বেশকিছুটা উত্তজিত হয়েই অঙ্কিতাকে এমন মন্তব্য করতে শোনা গেল…
রিপাবলিক টিভির প্রতিবেদন অনুসারে অঙ্কিতা বলেন, ‘যখন আমি প্রথম শুনলাম ও আত্মহত্য করেছে। বিষয়টা আমি মানতে পারিনি। এটা বিশ্বাস করতে আমার সময় লেগেছে। সুশান্ত সেধরনের ছেলেই ছিল না যে কোনও কিছুতে মন খারাপ করে এত বড় পদক্ষেপ নেবে। আমরা যখন একসঙ্গে থাকতাম, তখন আরও অনেক কঠিন পরিস্থিতি আমরা পার করেছি। সুশান্তের ঘরের বিভিন্ন ভিডিয়ে সোশ্যাল মিডিয়ায় ভাইরাল হচ্ছিল। অনেকেই বলছেন এটা আত্মহত্যা, তবে আমি বিশ্বাস করিনি। সুশান্ত ডায়েরি লিখত। আমরা যখন সম্পর্কে ছিলাম, তখন ও লিখেছিল আগামী ৫ বছর পর ও নিজেকে কোথায় দেখতে চায়। আর ও সেই জায়গায় নিজেকে পৌঁছেছিল অনেকেই ওকে দিমেরুর মানুষ বলছেন। আমি জোর গলায় বলতে পারি, ও মানসিক অবসাদগ্রস্ত ছিল না। ও খুবই আবেগপ্রবণ ছিল, একেবারে শিশুদের মতো। ও বলত ও চাষাবাদ করবে। আর কিছুই না হলে শর্টফিল্ম করবে। ও মানসিকভাবে ভেঙে পড়ার ছেলে কখনওই নয়।’ সূত্র: জিনিউজ

 108 total views,  2 views today

নিউজটি আপনার বন্ধুদের সাথে শেয়ার করুন




© All rights reserved © 2018 doinikjonotarkhobor